,
আপডেট

কীভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখবেন ব্যায়াম-পরবর্তী রাক্ষুসে ক্ষুধা?

বেশ ভালোমতো ঘাম ঝরিয়ে ব্যায়াম করে ওঠার পর প্রায় সবারই ভয়ংকর ক্ষুধা লাগে। মনে হয় চোখের সামনে যা আছে সব খেয়ে নিতে পারবো। বিশেষ করে দৌড়ানোর পরে এ ব্যাপারটা দেখা যায়।

আমরা ভাবি, ব্যায়াম যখন করলামই, এখন যা ইচ্ছে তাই খাওয়া যেতে পারে। কিন্তু আসলেই কি তাই? এই মুহূর্তে হিতাহিত জ্ঞানশূন্য হয়ে খেয়ে নিলেন মোটামুটি ২,৫০০ ক্যালোরির পিজ্জা, যার ফলে ২০০০ ক্যালোরি ঝরানো ব্যায়ামের পুরোটাই গেলো মাটি হয়ে!

ব্যায়ামের পর এভাবে খাওয়াটা আমাদের অনেক কাছেই দোষের কিছু বলে মনে হয় না। কারণ ব্যায়াম করে অনেকগুলো ক্যালোরি ঝরানোর পর আমাদের শরীরের জ্বালানী দরকার হতেই পারে।

কিন্তু এই জ্বালানী জোগাতে গিয়ে একেবারে ভুরিভোজ করে ফেলাটা মোটেই সমীচীন নয়। ব্যায়াম শেষ করার পর বাকি দিনটায় আপনার শরীরের মেটাবোলিজম কমে যায়। ফলে আপনি যাকে প্রচণ্ড ক্ষুধা ভাবছেন তা আসলে মোটেই তেমন কোনো ক্ষুধা নয়। এ সময়ে বেশি খেতে গেলে আপনার নিজেরই ক্ষতি হয়ে যাবে।

কিন্তু কি করে বুঝবেন ব্যায়ামের পর আপনার আসলেই ক্ষুধা লেগেছে কিনা? আর ব্যায়ামের পর কম না বেশি খাওয়া উচিত, সেটাই বা বুঝবেন কি করে?

১) ব্যায়ামের পরিমাণ বুঝে খান

দৈনিক যদি এক ঘণ্টার কম সময় আপনি দৌড়ানো বা একই মাত্রার ব্যায়ামে ব্যয় করেন, তবে আপনার প্রতিদিনের খাবারের পরিমাণ বাড়ানোর কোনোই দরকার নেই। কিন্তু ব্যায়ামের আগে এবং পরে অবশ্যই খাওয়া দাওয়া করতে হবে।

অনেকে ওজন কমানোর জন্য খালিপেটে ব্যায়াম করেন। এ কাজটি করার আগে অবশ্যই একজন ডাক্তার অথবা পুষ্টিবিদের মতামত নেওয়া জরুরী। আর শরীরকে ক্লান্ত করে ফেলে এমন এক দফা লম্বা ব্যায়ামের পর পরই খাওয়াটাও জরুরী।

২) কখন খাওয়া থামাতে হবে?

ব্যায়ামের পরে যে রাক্ষুসে ক্ষুধা লাগে, তা আমাদের মস্তিষ্ককে কিছুটা ভোঁতা করে ফেলে। তাই খাওয়া শুরু করার পর কখন আমাদের পেট ভরে গেছে এবং শরীরের চাহিদা পূরণ হয়েছে, এ ব্যাপারটা মস্তিষ্ক সাথে সাথে ধরতে পারে না।

এ কারণে অতিরিক্ত খাবার চলে যায় পেটে। এ ব্যাপারে সতর্ক থাকুন। বেশি ব্যায়াম যেদিন করবেন, সেদিন ব্যায়ামের ঠিক আগে বা ঠিক পরে খাবারের পরিমাণটাও একটু বেশি রাখবেন। যেমন ব্যায়ামের আগে অতিরিক্ত একটা কলা খেয়ে নিন অথবা ব্যায়ামের পরে পান করুন একটা স্মুদি। এটা করলে ওই রাক্ষুসে ক্ষুধার বশবর্তী হতে হবে না।

  (এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয় ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি - ঠিকানা - YouTube.com/HealthBarta)

৩) শরীরের চাহিদা মাথায় রাখুন

আমাদের শরীর নিজেই নিজেকে ঠিক রাখার চেষ্টা করে সব সময়ে। দিনের কোন সময়টাতে আপনি সবচাইতে বেশি ক্ষুধার্ত অনুভব করছেন তার ব্যাপারে লক্ষ্য করুন। সে সময়টা বাদে অন্য কোনো সময়ে বেশি ক্ষুধা লাগা মানে শরীরের চাহিদার পরিবর্তন হয়েছে।

এর সাথে তাল মিলিয়ে খাবারের সময় বা পরিমাণ আমাদের পরিবর্তন করতে হবে। এই কাজটি করতে গিয়ে অনেকে আবার অসময়ে আজেবাজে প্রক্রিয়াজাত খাবার, বিশেষ করে ফাস্টফুড খেয়ে থাকেন। সেটা না করে প্রাকৃতিক খাদ্যের পরিমাণ বাড়ানোর চেষ্টা করুন।

৪) স্বাস্থ্যকর খাবার খান

“খাওয়ার জন্য ব্যায়াম নয়, বরং ব্যায়ামের জন্য খাবার”, এ ব্যাপারটি মাথায় রাখুন। ব্যায়াম করেছেন বলেই আজেবাজে খাওয়াদাওয়া করাটা একেবারেই অনুচিত। বেশিরভাগ সময়েই ব্যায়ামের পর অনেক চিনি অথবা ফ্যাটসমৃদ্ধ খাবার খেতে ইচ্ছে করে আমাদের।

এক্ষেত্রে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করুন। যে খাবারটি খেতে ইচ্ছে করছে তার সাথে একটু স্বাস্থ্যকর কোনো খাবার খেয়ে নিন। যেমন একটা কুকি খাওয়ার সাথে সাথে খেতে পারেন কিছুটা টক দই। এ ছাড়াও খেতে পারেন এমন কিছু খাবার যা পুষ্টিগুণে ভরপুর আর তার সাথে সুস্বাদুও বটে। যেমন নারকেলের শাঁস অথবা চিনিবিহীন ডার্ক চকলেট। এতে পেটও ভরবে, স্বাস্থ্যেরও উপকার হবে।

৫) একেবারে পেট খালি রাখবেন না

ব্যায়ামের পরে যদি আসলেই আপনার বেশি ক্ষুধা লেগে থাকে, তবে সে সময়ে ক্ষুধা না মিটিয়ে রাখাটাও কিন্তু বিপজ্জনক। মাথা ঘোরা, অতিরিক্ত বিরক্তি, মনোযোগের অভাব অথবা প্রচণ্ড ঘুম ঘুম ভাবে থাকলে বুঝতে হবে আপনার আসলেই অনেক বেশি ক্ষুধা লেগেছে।

এসব উপসর্গ দেখা দেয় শরীরে প্রয়োজনীয় শর্করার অভাব হলে। অনেক সময় হাইপোগ্লাইসেমিয়া (রক্তে চিনির অভাব) হতে পারে যার উপসর্গ হিসেবে এগুলো দেখা দেয়।

এসব টিপস মনে রেখে ব্যায়ামের আগে পর্যাপ্ত পরিমাণে খাওয়া হলে ব্যায়ামের পরে আর এমন রাক্ষুসে ক্ষুধা লাগার কোনো কারণ নেই। তবে তার পরেও নিজের স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে ক্যালোরি ইনটেকের ব্যাপারে একজন স্পোর্টস নিউট্রিশনিস্টের পরামর্শ নিতে পারেন।

বিশেষ মুহূর্তে যৌন দুর্বলতা, শুক্র স্বল্পতা, মিলনে সময় সময় কম, লিঙ্গের শিথিলতা সহ যে কোন যৌন সমস্যায় অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং স্থায়ী চিকিৎসা গ্রহন করুন। যোগাযোগ করুন ডাক্তার নাজমুলঃ 01799 044 229

আপডেট পেতে লাইক দিন আমাদের ফেসবুক পেজে

Leave a Reply