৬টি কাজে নিজের হৃৎপিণ্ডকে তিলতিল মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছেন আপনি! | হেলথ বার্তা
,
আপডেট

৬টি কাজে নিজের হৃৎপিণ্ডকে তিলতিল মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছেন আপনি!

হৃৎপিণ্ড আমাদের দেহের সব চাইতে গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ। আমাদের সারা দেহে সঠিক সময়ে এবং সঠিক মাত্রায় রক্ত সরবরাহ করে দেহকে কর্মক্ষম রাখে এই হৃৎপিণ্ড।

তাই হৃৎপিণ্ডকে সুস্থ রাখতে অনেকেই অনেক পদক্ষেপ নিয়ে থাকেন। কিন্তু এমন অনেক কাজ রয়েছে যা আমাদের প্রতিদিনের অভ্যাসে পরিনত হয়েছে অথচ আমরা জানি না এই কাজগুলো আমাদের হৃৎপিণ্ডের কতোটা ক্ষতি করে চলেছে। চলুন তবে দেখে নেয়া যাক এমনই ৬ টি কাজ যা আমাদের হৃৎপিণ্ডের ক্ষতি করছে প্রতিনিয়ত।

অতিরিক্ত প্রযুক্তির ব্যবহার:

আধুনিক এই যুগে প্রায় সকলেই প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে থাকেন। এরই ধারাবাহিকতায় সকলেই প্রতিদিন ব্যবহার করছেন ল্যাপটপ, পিসি, টেলিভিশন ও মোবাইল ফোন। কিন্তু দীর্ঘ সময় ধরে ল্যাপটপ, পিসি, মোবাইল ফোনের ব্যবহার এবং টেলিভিশন দেখা হৃৎপিণ্ডের অনেক বেশি ক্ষতি করে।

লাল মাংস খাওয়া:

অনেকেই বেশ শখ করে লাল মাংস খেয়ে থাকেন, যেমন গরু বা খাসি। লাল মাংস আসলেই অনেক সুস্বাদু একটি খাবার। কিন্তু লাল মাংস বিশেষ করে গরু ও খাসির মাংস হৃৎপিণ্ডের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। লাল মাংস দেহে খারাপ কোলেস্টোরলের মাত্রা অতিরিক্ত পরিমানে বাড়িয়ে দেয়। ফলে উচ্চ রক্ত চাপ জনিত সমস্যা দেখা দেয় এবং হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

  (এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয় ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি - ঠিকানা - YouTube.com/HealthBarta)

লবণ খাওয়া:

অনেকের খাবার পাতে টোকা লবণ অর্থাৎ বাড়তি লবণ খাওয়ার অভ্যাস রয়েছে। কিন্তু এই অভ্যাসটি হার্টের অনেক বেশি ক্ষতি করে থাকে। বেশি মাত্রায় লবণ গ্রহণ হার্টের জন্য অনেক বেশি ক্ষতিকর। কারন লবণ কলেস্টোরলের মাত্রা অনেক বাড়িয়ে দেয় ফলে হার্ট অ্যাটাক এবং হার্ট ফেইলিওরের আশংকা বাড়ে। যারা লবণ কম খান বা একেবারেই খান না তাদের প্রায় ৮০% আশংকা কমে যায়।

দাঁত ও মুখের ভেতর ঠিকমতো পরিস্কার না রাখা:

দাঁত, মাড়ি এবং মুখের ভেতর ঠিকমতো পরিস্কার না করলে দাঁতের গোঁড়ায় যে খাদ্যকণা জমে থাকে তা মুখে এক ধরনের ব্যাকটেরিয়ার জন্ম দেয় যা মস্তিকের শিরা উপশিরা ব্লক করে ফেলে।

ফলে হৃৎপিণ্ড ও মস্তিষ্কের মধ্যে রক্ত সরবরাহ একেবারে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। এতে করে মস্তিষ্কের পাশাপাশি হার্টের উপর চাপ অতিরিক্ত মাত্রায় বেড়ে যায়। এই কাজটি থেকে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। তাই নিয়মিত এবং সঠিক ভাবে দাঁত ও মুখের ভেতর পরিস্কার রাখা দরকার।

বেশী মাত্রায় বিষণ্ণ থাকা:

বিষণ্ণতা মন এবং মস্তিষ্কের জন্য যতোটা ক্ষতিকর তেমনই ক্ষতিকর হৃৎপিণ্ডের জন্যও। বিষণ্ণতার কারণে মস্তিষ্কের পাশাপাশি হৃৎপিণ্ডে অনেক চাপ পরে। হার্টবিট অনেক বেড়ে যায় এবং হার্ট ঠিকমতো কাজ করতে পারে না। বিষণ্ণতায় ভোগা মানুষের হার্ট অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে।

ধূমপান ও মদ্যপান:

ধূমপান এবং মদ্যপান দুটোই হার্টের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। নিকোটিন এবং অ্যালকোহল বেশ দ্রুতগতিতে হৃৎপিণ্ডের কার্যক্ষমতা কমিয়ে দেয়। এমনকি যারা ধূমপান করেন তাদের আসে পাশে যারা এই ধোঁয়া গ্রহন করে নিঃশ্বাসের সাথে তাদেরও একই ধরনের হার্টের ক্ষতি হয়ে থাকে।

বিশেষ মুহূর্তে যৌন দুর্বলতা, শুক্র স্বল্পতা, মিলনে সময় সময় কম, লিঙ্গের শিথিলতা সহ যে কোন যৌন সমস্যায় অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং স্থায়ী চিকিৎসা গ্রহন করুন। যোগাযোগ করুন ডাক্তার নাজমুলঃ 01799 044 229

আপডেট পেতে লাইক দিন আমাদের ফেসবুক পেজে

Leave a Reply