,
আপডেট

যন্ত্রণা যখন পিরিয়ডের সময়ে

বয়ঃসন্ধিতে মাসিক শুরু হওয়া থেকে মেনোপজ পর্যন্ত গড়ে প্রায় নব্বই শতাংশ মেয়ের অবিচ্ছেদ্য সঙ্গী হয়ে দাঁড়ায় যন্ত্রণাদায়ক ঋতুস্রাব। প্রজননতন্ত্রের স্বাস্থ্যরক্ষা অনেক জরুরি একটা বিষয় হলেও আমাদের সমাজে এ ব্যাপারে খোলাখুলি কথাবার্তা আজও নিষিদ্ধ, তাই অধিকাংশ মেয়েরাই ব্যাপারটিকে চেপে যায়। কিন্তু আপনি কি জানেন, যন্ত্রণাদায়ক ঋতুস্রাবের উপযুক্ত চিকিৎসা হওয়া প্রয়োজন?

কারণঃ

১) প্রাকৃতিক কারনঃ
মাসিক হওয়ার সময়, জরায়ুর মাংসল দেওয়াল সংকুচিত ও প্রসারিত হয় যা দূষিত তরল ও রক্ত বের করে দেওয়ার জন্য শরীরের একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। কিন্তু এসময় জরায়ুর আবরণী কলার রক্তনালিকা মাঝে মাঝেই জরায়ুকে রক্ত ও অক্সিজেন সরবরাহ করা সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয়। তখন জরায়ু থেকে কিছু রাসায়নিক পদার্থ নিঃসৃত হয় যা ব্যথা তৈরি করতে পারে।
এটা স্বাভাবিক ব্যথা।

২)রোগ বা অসুস্থতাঃ

কখনও কখনও ব্যথা হতে পারে আপনার মাঝে লুকিয়ে থাকা কোন রোগ থেকে। যেমন, এন্ডমেট্রিওসিস বা ওভারিয়ান সিস্ট থেকে। এছাড়াও, যদি সারভিক্স সরু থাকে বা ইনফেকশন থেকে থাকে তখনও ব্যথা হতে পারে।

লক্ষণঃ

তলপেটে প্রচণ্ড ব্যথাই প্রধান লক্ষণ, এর সাথে বমি হওয়া, খাবারে অরুচি, শারীরিক অবসাদ, মাথা ঘোরানো, চোখে ঘোলা দেখা বা অন্ধকার দেখা, দুর্বলতা, হালকা জ্বর, মাথা ব্যথা এবং পাতলা পায়খানা আপনার জীবন দুর্বিষহ করে তুলতে পারে।

শুধু তাই নয়, খিটখিটে মেজাজ, রুক্ষ ব্যবহার, ধৈর্যহীনতা আপনার আশেপাশের মানুষের জন্য সমস্যা তৈরি করতে পারে।

চিকিৎসাঃ

অনেকেই ব্যথার ওষুধ খেয়ে থাকেন কিন্তু আমি কখনই ব্যথার ওষুধ খাওয়ার পরামর্শ দেবনা। এটা কখনই স্থায়ী সমাধান নয়।

  (এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয় ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি - ঠিকানা - YouTube.com/HealthBarta)

ঘরে কী করবেন?

আপনি খুব বেশি কষ্ট পাচ্ছেন? তাহলে ঝটপট একটা গরম সেঁক নিয়ে নিন। হট ওয়াটার ব্যাগ নিয়ে তলপেটে রাখুন, এর উষ্ণতা রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে আপনাকে আরাম দেবে। ব্যথা কমে গেলে একদম অকেজো না হয়ে গিয়ে হালকা ব্যায়াম করুন। তলপেটে চাপ দেবেন না। ভারি কাজ করবেন না। অকারণে ছুটাছুটির প্রয়োজন নেই। প্রচুর পরিমাণে আয়রনসমৃদ্ধ খাবার (যেমন, কাঁচকলা, কচুমুখি) এবং দুধ খান। আরাম করুন। পরিবারের সবচেয়ে কাছের মানুষটির সাথে এ ব্যাপারে আলোচনা করুন, আপনার সমস্যার কথা চেপে রাখবেন না।

খাদ্যতালিকাঃ

আপনার খাদ্যতালিকাটা কি খেয়াল করেছেন? এতে কি আপনার জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টিটুকু আছে? আপনার খাদ্যতালিকায় অবশ্যই থাকতে হবে, আয়রন, ম্যাগনেশিয়াম, ক্যালশিয়াম সমৃদ্ধ খাবার। আপনাকে খেতে হবে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড এবং ভিটামিন ই। এছাড়াও ভিটামিন বি ৩ বা নিয়াসিন।

যদি খাবার দিয়ে আপনার চাহিদা পূরণ না হয় তাহলে আপনার চিকিৎসক আপনাকে দিতে পারেন ওরাল সাপ্লিমেন্ট।

নিজের খেয়াল রাখুন নিজেঃ

বাড়তি ওজন ঝরিয়ে ফেলুন। দেখা গেছে, যারা মোটা, তাঁদের ক্ষেত্রেই প্রজননতন্ত্রের রোগগুলো জটিল আকার ধারণ করে। আপনার হরমোন জনিত রোগ আছে কিনা পরীক্ষা করে নিন। বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দেখান, এবং ডাক্তারের

কাছে সবকিছু বলুন স্পষ্ট ভাষায়, গুছিয়ে। ডাক্তার আপনাকে কী করতে বলছেন তাও শুনুন মনোযোগ দিয়ে, বুঝে নিন আপনার করণীয়।

ভালো খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুলুন। ধূমপান, মদ্যপান এবং নিয়ন্ত্রণহীন জীবন ত্যাগ করুন। প্রয়োজনীয় পরীক্ষা করানো শেষে যদি কোন রোগ ধরা পড়েই, তবুও পজিটিভ থাকুন এবং সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ করুন সবসময়ে।

বিশেষ মুহূর্তে যৌন দুর্বলতা, শুক্র স্বল্পতা, মিলনে সময় সময় কম, লিঙ্গের শিথিলতা সহ যে কোন যৌন সমস্যায় অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং স্থায়ী চিকিৎসা গ্রহন করুন। যোগাযোগ করুন ডাক্তার নাজমুলঃ 01799 044 229

আপডেট পেতে লাইক দিন আমাদের ফেসবুক পেজে

Leave a Reply