মাঝবয়সে দিবানিদ্রা স্মৃতিশক্তি বাড়ায় | হেলথ বার্তা
,
শিরোনাম

মাঝবয়সে দিবানিদ্রা স্মৃতিশক্তি বাড়ায়

দিবানিদ্রার বিভিন্ন ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে এর আগে বহুবার সতর্ক করেছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও গবেষকরা। তবে মাঝবয়সে দিবানিদ্রা ক্ষতিকর নয় বলে জানিয়েছেন তারা। কারণ, নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে, এ বয়সে বিকেলের ঘুমটা স্মৃতিশক্তি বাড়ায়। পার্সপেক্টিভ অন সাইকোলজিকল সায়েন্স সাময়িকীতে গবেষণাপত্রটি ছাপা হয়েছে। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা আইএএনএস।

তরুণ ও মাঝবয়সে রাতের সুনিদ্রা স্মৃতিশক্তি ও শেখার ক্ষমতা বা সামর্থ্যকে বাড়ায়। যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের বেইলর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিøপ নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড কগনিশন গবেষণাগারের পরিচালক মাইকেল কে স্কালিন বলছিলেন, মানুষের বয়স যখন বাড়তে থাকে, তারা রাতে ঘুম থেকে বেশি ওঠেন এবং তাদের গভীর ঘুম এবং স্বপ্ন দেখার মতো ঘুম কমে আসে।

অথচ, এ দুই ধরনের ঘুমই মস্তিষ্কের সার্বিক ক্রিয়াকৌশল সুসম্পন্নের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । একজন মানুষ যদি ৮৫ বছর বয়স পর্যন্ত বাঁচেন, তিনি জীবদ্দশায় প্রায় আড়াই লাখ ঘণ্টা অর্থাৎ, ১০ হাজারেরও বেশি পূর্ণ দিন ঘুমিয়েছেন বলে ধরে নেয়া যায়।

  (এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয় ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি - ঠিকানা - YouTube.com/HealthBarta)

স্কালিন বলেন, মানুষ কখনও কখনও ঘুমকে সময়ের ‘অপচয়’ হিসেবে অবজ্ঞা করেন। কিন্তু, সুনিদ্রা ভালো মানসিক স্বাস্থ্য, হৃৎপি- ও রক্তবাহী ধমনীর সুস্বাস্থ্যের সঙ্গে সম্পর্কিত। সুনিদ্রার ফলে মারাত্মক বিভিন্ন রোগ ও শারীরিক সমস্যায় আক্রান্তের ঝুঁকি অনেক কমে আসে।

১৯৬৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত যতো গুরুত্বপূর্ণ গবেষণা পরিচালিত হয়েছে, বিশেষজ্ঞরা তার মধ্যে প্রায় ২০০টি গবেষণার তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করেন। একই সঙ্গে তারা নতুন করে গবেষণা চালান। ১৮ থেকে ২৯ বছর বয়সীদের তরুণ, ৩০ থেকে ৬০ বছর বয়সীদের মাঝবয়সী এবং ষাটোর্ধ্ব ব্যক্তিদের বয়স্ক হিসেবে ধরা হয় এ গবেষণায়।

গবেষণায় অংশ নেয়া স্বেচ্ছাসেবীদের প্রশ্ন করা হয়, সাধারণভাবে তারা কতো ঘণ্টা ঘুমান, ঘুমাতে কতোক্ষণ সময় লাগে, রাতে ঘুমের মধ্যে তারা কতোবার ঘুম থেকে ওঠেন এবং দিনের বেলা তারা কতোটা ঘুম-ঘুম বোধ করেন।

আপডেট পেতে লাইক দিন আমাদের ফেসবুক পেজে