,
আপডেট

আসছে ভার্চুয়াল রোগীর উপর পরীক্ষা

মূল চিকিৎসায় কাজ না হলে বা মারাত্মক পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া দেখা দিলে রোগীর জীবনও বিপন্ন হতে পারে৷ কিন্তু কম্পিউটারে তাঁর ‘ভার্চুয়াল’ শরীরের উপর আগেভাগে পরীক্ষা চালাতে পারলে সেই বিপদের মাত্রা কমে যেতে পারে৷

রোগ মানেই ডাক্তারের কাছে ছোটা, তারপর ওষুধ, চিকিৎসা৷ সে চিকিৎসায় বিভ্রাটের আশঙ্কাও রয়েছে৷ কিন্তু একবার ভেবে দেখুন, ডাক্তার যদি আপনার উপর নয় – আপনার ডিজিটাল ভার্চুয়াল মডেলের উপর চিকিৎসা চালিয়ে দেখে নেন, তাতে আদৌ উপকার হবে কি না, তাহলে কেমন হয়?

অপারেশন আসল রোগীর শরীরেই করা হয়৷ তবে অপারেশন থিয়েটারে বাকি সবই ক্রমশঃ ডিজিটাল প্রযুক্তির আওতায় চলে আসছে৷ রোগীর ছবি, তাঁর বিষয়ে নানা তথ্য পাঠানো হয় ওটি-র কম্পিউটারের মধ্যে৷ বাকি কাজেও প্রযুক্তির প্রয়োগ বাড়ছে৷

মস্তিষ্কে বিশেষ অপারেশনের পরিকল্পনার জন্য নিউরো-সার্জেন বিশেষ একটি অ্যাপ তৈরি করেছেন৷

তা দিয়ে তিনি ছুরি চালানোর নিখুঁত অ্যাঙ্গেল ও ক্যাথিটারের দৈর্ঘ্য হিসেব করেন৷ এই যন্ত্রে অ্যাঙ্গেল স্থির করা হয়৷ তারপর রোগীর মাথার উপর তা প্রয়োগ করা হয়৷ বেশ সহজ উপায়৷ বার্লিনের নিউরো সার্জেন উলরিশ ভিলহেল্ম টোমালে বলেন, ‘‘প্রযুক্তি নিয়ে বাড়াবা়ড়ি যাতে না হয়, আমরা সেই চেষ্টা করেছি৷ উলটে আমরা এমন সব ক্ষেত্রে প্রযুক্তির প্রয়োগ কমানোর বিষয়ে মনোযোগ দিচ্ছি, যাতে আরও বেশি সংখ্যক রোগীর উপকার হয়৷”

আজকের চিকিৎসাশাস্ত্রে ডিজিটাল তথ্য ছাড়া চলেই না৷ রোগ শনাক্ত করার ক্ষেত্রে এমন হাইটেক যন্ত্রের প্রচলন বেড়ে চলেছে, যা মানুষকে তথ্য ও ছবিতে রূপান্তরিত করে৷ রোগীর ছবিও ডিজিটাল পদ্ধতির ফলে আরও তথ্যবহুল হয়ে উঠছে৷ গবেষক আইকে ভেনৎসেল বলেন, ‘‘অর্থাৎ শেষ পর্যন্ত আমরা রোগীদের ক্ষেত্রে ডিজিটাল পদ্ধতিকে এমন এক পর্যায়ে নিয়ে আসছি, যাতে তার সম্পর্কে অসংখ্য তথ্য সংগ্রহ করা যায়৷”

ক্যানসার গবেষণার ক্ষেত্রেও এমন প্রচেষ্টা চলছে৷

  (এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয় ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি - ঠিকানা - YouTube.com/HealthBarta)

বিজ্ঞানীরা টিউমার থেকে তথ্য সংগ্রহ করছেন, যেমন ডিএনএ৷ রোগীর জিন ও মেটাবলিজম সংক্রান্ত তথ্যও ডিজিটাল তথ্যভাণ্ডারে পাঠানো হয়৷ তা দিয়ে রোগীর শরীরের এক ভার্চুয়াল মডেল তৈরি হয়৷ বার্লিনের মাক্স প্লাংক ইন্সটিটিউটের হান্স লেয়ারলাখ বলেন, ‘‘আরও দ্রুত, আরও নিরাপদ, আরও সস্তায় সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে আমাদের হাতে সত্যি এক মূল্যবান অস্ত্র এসেছে৷”

গবেষকরা রোগীর এই ভার্চুয়াল মডেলের উপর নানা রকম ওষুধ পরীক্ষা করে দেখছেন৷ রং যত নীল হয়, ওষুধের কার্যকারিতা তত বেশি৷ এই প্রযুক্তি সাধারণ রোগীর উপযোগী হয়ে উঠতে আরও সময় লাগবে৷ তখন প্রত্যেক মানুষের এমন ভার্চুয়াল ছবি তোলা যাবে৷ এমনকি ভবিষ্যতে রোগীর রোবোট প্রতিমূর্তি তৈরি করার স্বপ্নও দেখছেন গবেষকরা৷

মানুষের মস্তিষ্কও কম্পিউটারে পোরার তোড়জোড় চলছে৷ এভাবেই গবেষকরা মগজকে বুঝতে চান৷ এক সুপার কম্পিউটার মগজের প্রতিটি স্তর পড়ে ফেলবে৷ মানুষের মগজের নিখুঁত, ত্রিমাত্রিক ছবি তোলা হবে৷ আজকের কম্পিউটারের ক্ষমতা এখনো সে পর্যায়ে পৌঁছায় নি৷ ভবিষ্যতে এই প্রকল্প শেষ হলে চিকিৎসাবিদ্যার ক্ষেত্রে বিশাল অগ্রগতির আশা করছেন গবেষকরা৷ মস্তিষ্ক গবেষক কাটরিন আমুন্টস বলেন, ‘‘আমি শুধু কাঠামো কী, তা বুঝতে চাই না৷ সেগুলির কাজ আমি জানতে চাই৷ তবে আমরা এটুকু জানি যে মস্তিষ্কের কোনো অংশের শিরা-উপশিরা দেখলে তার কাজও বোঝা যায়৷”

বিজ্ঞানীরা সব সংযোগ ও সব কাজ বুঝতে পারলে নানা রোগ-ব্যাধি আরও ভালোভাবে শনাক্ত করে তার চিকিৎসা করা সম্ভব হবে বলে আশা করা হচ্ছে৷ আইকে ভেনৎসেল বলেন, ‘‘ডিজিটাল প্রযুক্তির প্রয়োগের ফলে চিকিৎসাবিদ্যা আরও কার্যকর হয়ে উঠবে, আরও ভালোভাবে তার প্রয়োগ সম্ভব হবে৷ ‘বিগডেটা’-র কল্যাণে বড় বড় ধাপে অগ্রগতি ঘটবে৷ এর ফলে চিকিৎসা অনেক মানুষের আওতায় এসে যাবে, আর্থিক সামর্থ্য নিয়ে সমস্যা হবে না৷”

ডিজিটাল জগত চিকিৎসাবিদ্যায় বিপ্লব আনবে এবং হয়তো আমাদের আত্মপরিচয়ও বদলে দেবে৷

বিশেষ মুহূর্তে যৌন দুর্বলতা, শুক্র স্বল্পতা, মিলনে সময় সময় কম, লিঙ্গের শিথিলতা সহ যে কোন যৌন সমস্যায় অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং স্থায়ী চিকিৎসা গ্রহন করুন। যোগাযোগ করুন ডাক্তার নাজমুলঃ 01799 044 229

আপডেট পেতে লাইক দিন আমাদের ফেসবুক পেজে

Leave a Reply