,
আপডেট

রক্তে চিনির অভাব দাম্পত্য সম্পর্ককে বেশি তেতো করে তুলতে পারে

এক গবেষণায দেখা গেছে, রক্তে চিনির অভাব সম্পর্ককে অনেক বেশি তেতো করে তুলতে পারে। সম্প্রতি ১০৭ জোড়া বিবাহিত দম্পতির ওপর গবেষণা চালিয়েছে ওহাইও স্টেট ইউনিভার্সিটির একদল বিজ্ঞানী। তাঁরা দেখতে পেয়েছেন, রক্তে শর্করার পরিমাণ কমে গেলে, সঙ্গী বা সঙ্গীনির প্রতি রাগ, ক্ষোভ ও আক্রমণাত্মক মনোভাব মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে।

ই গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের টানা ২১ দিন প্রাতরাশ ও রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে রক্তে শর্করার পরিমাণ মেপে দেখতে বলা হয়৷ প্রত্যেককে দেওয়া হয় একটি ভুডু পুতুল। সঙ্গে ৫১টি কাঁটা। অংশগ্রহণকারীদের বলা হয়, প্রতিদিন তাঁরা স্বামী বা স্ত্রীর প্রতি যতটা রাগ অনুভব করেছেন, সেই অনুযায়ী কাঁটা বিঁধিয়ে দিতে হবে ওই পুতুলের গায়ে।

গবেষণা শেষে প্রত্যেকের রক্তে শর্করার পরিমাণ এবং ভুডু পুতুলে কাঁটার সংখ্যা বিশ্লেষণ করে দেখা গিয়েছে, যেদিন রক্তে শর্করার পরিমাণ যত কম, সেদিন পুতুলে কাঁটার সংখ্যা তত বেশি৷ এই গবেষণার এক গবেষক, লেখক ব্র্যাড বুশম্যান বলেন, ‘এমনকি যাঁরা সুখি দাম্পত্য জীবনের কথা বলেছেন, রক্তে চিনি কম থাকলে তাঁরাও রাগ দেখিয়েছেন পুতুলের ওপর।’

  (এই বিষয়গুলোর উপর ভিডিও বা স্বাস্থ্য বিষয় ভিডিও দেখতে চাইলে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি - ঠিকানা - YouTube.com/HealthBarta)

এখানেই শেষ নয়। ভুডু পুতুলের পরীক্ষার পর এই অংশগ্রহণকারীদের ওপর চালানো হয় আর একটি পরীক্ষা। দু’জনকে পাশাপাশি দু’টি আলাদা ঘরে রেখে সঙ্গী ও সঙ্গীনীর বিপক্ষে একটি কম্পিউটার গেম খেলতে বলা হয়। একজন জিতে গেলে, পরাজিত সঙ্গী বা সঙ্গীনি কতটা চিৎকার করে ক্ষোভ প্রকাশ করেন, হেডফোনে তা-ও খেয়াল রাখা হয়। তবে কম্পিউটারে এমন ভাবে এই প্রোগাম তৈরি করা হয়েছিল, যাতে প্রত্যেকেই সমান সংখ্যক বার জয়ী হতে পারেন।

এই গবেষণার পর গবেষকরা লক্ষ করেছেন, যাঁদের রক্তে শর্করা কম, হেরে গিয়ে তাঁরাই সবচেয়ে বেশি রেগে গিয়েছেন৷ আর পূর্ববর্তী গবেষণায় যাঁরা ভুডু পুতুলে বেশি কাঁটা বিঁধিয়েছেন, তাঁদের মধ্যেই হেরে গিয়ে ক্ষেপে যাওয়ার প্রবণতা বেশি৷ বুশম্যান বলেন, ‘রক্তে শর্করা কম থাকলে আক্রমণাত্মক মনোভাবও যে বেড়ে যায়, এটা তারই নির্দেশক।’

বুশম্যান বলেন, গ্লুকোজ বা শর্করা মস্তিষ্কে জ্বালানির কাজ করে। মস্তিষ্কের ওজন মানবদেহের মোট ওজনের মাত্র ২ শতাংশ হলেও, প্রতিদিন খাবারের সঙ্গে শরীরে যাওয়া শর্করার ২০ শতাংশ ওই মস্তিষ্কই খরচ করে। রাগ বা ক্রোধ সামলাতে তাৎক্ষণিক ভাবে নিজের ওপর যে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে হয়, তাতে মস্তিষ্কের বাড়তি শক্তি প্রয়োজন হয়। তখন চিনিতে টান পড়লে গোলমাল।

তথ্যসূত্র: কালেরকণ্ঠ

বিশেষ মুহূর্তে যৌন দুর্বলতা, শুক্র স্বল্পতা, মিলনে সময় সময় কম, লিঙ্গের শিথিলতা সহ যে কোন যৌন সমস্যায় অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং স্থায়ী চিকিৎসা গ্রহন করুন। যোগাযোগ করুন ডাক্তার নাজমুলঃ 01799 044 229

আপডেট পেতে লাইক দিন আমাদের ফেসবুক পেজে

Leave a Reply